নীতা আম্বানি
৩০০ কোটি টাকার হীরা উপহার দিয়েছেন নীতা আম্বানি

ভারতের রিলায়েন্স গ্রুপের কর্ণধার পৃথিবীর ১৩তম ও ভারতের শীর্ষ ধনী মুকেশ আম্বানীর বড় ছেলে আকাশ এবং শ্লোকা মেহতার বিয়ে হয়েছে চলতি বছরের ৯ মার্চ। ভারতের মুম্বাইয়ের জিয়ো ওয়ার্ল্ড সেন্টারে সাত পাকে বাঁধা পড়েছেন তারা। মুকেশ আম্বানীর স্ত্রী ও আইপিএলের দল মুম্বাই ইন্ডিন্সসের মালকিন নীতা আম্বানী ছেলের বউকে কী উপহার দিয়েছেন সেটা নিয়ে অনেকেরই আ্রগহ আছে।

প্রথমে নীতা আম্বানি ভেবেছিলেন, আকাশ আম্বানীর বৌ শ্লোকাকে একটি সোনার হার দেবেন। প্রথমে পারিবারিক সূত্রে খবর পাওয়া হার এটি। কিন্তু পরে সিদ্ধান্ত বদল করেন নীতা আম্বানি । হীরা ব্যবসায়ী রাসেল মেহতার মেয়ে শ্লোকার বিয়েতে গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই থেকে রতন টাটা, টাটা গ্রুপের ম্যানেজার, মাহিন্দ্রার সিইও-সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। আরো ছিলেন বলিউডের নামি দামী সব তারকারা । যেখানে শাখরুখ খান হতে করণ জহর, দীপিকা , প্রিয়্নকা কেও বাদ যায়নি।

নীতা আম্বানী এই বিগ ফ্যাট ওয়েডিংয়ে পুত্রবধূকে এমন কিছু দিতে চেয়েছিলেন যা সারাজীবন যেন তার পূত্রবধু শ্লোকার কাছে থেকে যাবে বিশেষ আশীর্বাদ হিসাবে। আম্বানী পরিবারের নিয়মের মধ্যেও এমনটাই রয়েছে, যে উপহার প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে রয়ে যাবে তাদের পরিবারে।

নীতাকে আম্বানীকে তার শাশ্বুড়ী কোকিলাবেন যে হার উপহার দিয়েছিলেন, সেটি দিতে চাইলেও পরে সোনার বদলে হীরা বেছে নিয়েছিলেন তিনি। এদিকে আকাশ আম্বানীর বড় বোন ঈশাও ভাবছিলেন তার ভাইয়ের স্ত্রীকে উপহার হিসেবে কী দেওয়া যায়, তাই তিনি একটি প্রাসাদের মতো বাংলো উপহার দিয়েছেন শ্লোকাকে।

অন্য দিকে নীতা আম্বানী হীরার একটি নেকলেস আশীর্বাদস্বরূপ দিয়েছিলেন শ্লোকাকে। শ্লোকার ওই হারের দাম নাকি তিনশ কোটি টাকা। নকশা ও কাটের দিক থেকে এর কোনো বিকল্প নেই। এই হার দিয়ে কী কী কেনা যেতে পারত?

মুম্বাইয়ের ক্ষেত্রেও ২ বিএইচকে ডুপ্লেক্স ফ্ল্যাট কেনা যেতে পারত একশ ২০টির বেশি। জুহুর মতো এলাকায় ১২টি ফ্ল্যাট কেনা যেতে পারে ওই টাকায়। দিল্লির অভিজাত এলাকায় ৩ বিএইচকে থেকে ৪ বিএইচকে ফ্ল্যাট কেনা যেত শতাধিক।

ছয়শ বার দিল্লি থেকে নিউইয়র্ক সিটিতেও বিমানে যাতায়াত করা যেতে পারে এই টাকায়, জানাচ্ছে বিমান পরিবহণ সূত্র। যদিও আম্বানী পরিবারের তরফে এ নিয়ে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন: নীতা আম্বানির এক কাপ চা এর দাম ৩ লক্ষ টাকা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here